মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ০৯:১৮ অপরাহ্ন
বিশেষ ঘোষণা :
সময়ের সাথে সাথে প্রযুক্তিও পাল্টে যাচ্ছে ! তাই বদলাতে হচ্ছে আমাদেরও। আপনি এখন দেখতে পাচ্ছেন সিটি নিউজ পোর্টালের আপডেট ভার্সন। নতুন সাইটে আপনি আরো দ্রুততার সাথে ঝপটপ খবর পড়ে নিতে পারবেন। ২০১৬ সাল থেকে এ পর্যন্ত আমরা ছয় বার সাইট আপডেট করেছি। অনিচ্ছাকৃত ত্রুটির ক্ষমা প্রার্থণা: ওয়েব সাইটটি আপডেট করার সময় পুরনো সাইটের কমবেশি ১০ শতাংশ খবর ”ডাটালস” এর কারণে কোনও পুরনো লিঙ্ক নাও খুলতে পারে। এটা একান্তই টেকনিক্যাল গ্রাউন্ড। যে কারণে সিটি নিউজের সম্পাদকীয় বিভাগ আন্তরিকভাবে ক্ষমা প্রার্থী। সঙ্গে থাকুন।

লাঙ্গল প্রতীক পেয়েই আ.লীগ অফিসে সেলিম ওসমান, বললেন ‘শতভাগ ভোট কাস্ট করতে হবে’

সিটি নিউজ / ১৭৭ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : সোমবার, ১৮ ডিসেম্বর, ২০২৩

নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনে জাতীয় পার্টির মনোনীত প্রার্থী একেএম সেলিম ওসমান বলেছেন, এখানে অত বড় কোন প্রার্থী নেই যে জোর দিয়ে নির্বাচন করতে হবে। বিশ্বকে দেখিয়ে দিতে হবে বাংলাদেশের মানুষও ভোট দিতে পারে। চল্লিশ, পঞ্চাশ পার্সেন্ট দিয়ে হবে না, শতভাগ ভোট কাস্ট করতে হবে।
সোমবার (১৮ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় শহরের ২নং রেলগেট এলাকায় নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের সাথে আলোচনা সভায় একথা বলেন তিনি। প্রথমবারের মতো আওয়ামীলীগের অফিসে গিয়েছেন সেলিম ওসমান।
তিনি আরও বলেন, অনেকে ভাবছে এখানে নৌকা কেন দেয়া হয়নি। এটা কষ্ট পাওয়ারই কথা। কিন্তু এই কষ্টে ভুল ছিল কীনা সেটাও ভেবে দেখতে হবে। আমার সাথে একবার বসা উচিত ছিল, কে নমিনেশন নেবে। আমার ভাইয়ের মৃত্যুর পর থেকে আমি এই আসনে দায়িত্ব পালন করছি। আমার ছোট বোন আইভীও বলেছে সেলিম ভাইকেই কেন নৌকা দিয়ে দেয়া হয় না। আমিতো রাজাকারের সন্তান না। আমার গায়ের শিরায় শিরায় আওয়ামী লীগ। প্রতিটি মিটিংয়ে গিয়েছি, যুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করে নিয়ে এসেছি।
সেলিম ওসমান আরও বলেন, আমি ভবিষ্যত প্রজন্ম নিয়ে কাজ করেছি। একটা মানুষের কয়টা নাতি নাতনি হয়, আমার লক্ষ নাতি নাতনি। সবাই আমাকে দাদু বলে ডাকে। আমি দাদু হয়ে গেলাম। আমার বয়স নেই। এবার নির্বাচন করার প্রশ্নই ছিল না। বলেছিলাম আপার নির্দেশ যদি আসে সেটা পালন করতেই হবে। জীবন দিয়ে হলেও নির্বাচন করতে হবে। মনোনয়ন দেয়ার পর এই একটি আসন খালি ছিল। আমাকে বলা হল ঘরের ছেলে ঘরে থাকুক। আওয়ামী লীগ আমাকে ভালবাসে। হোসাইন মুহাম্মদ এরশাদ নারায়ণগঞ্জে এসে বলে গিয়েছিল এখানে দুটি পার্টি আছে। ওসমান পার্টি আর ওসমান লীগ। তিনি রংপুরে থেকে বুঝতে পারলে নারায়ণগঞ্জে থেকে তারা কেন বুঝতে পারছে না।
তিনি আরও বলেন, বিএনপির ভাইদের বলতে চাই। আপনারা আমার সাথে কাজ করেছেন। আপনারা ভেবেছেন ২৯ তারিখ আপনারা ক্ষমতায় এসে পড়বেন। সেটা হয়নি। ফিরে আসুন আমাদের সাথে। ঘরের ছেলে ঘরে থাকেন। সুখে শান্তিতে কাজ করেন। এসময় জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগের ও দলটির অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। পরে তিনি তার প্রধান নির্বাচনী ক্যাম্প উদ্বোধন করেন।
এসময় উপস্থিত ছিলেন, জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত শহিদ বাদল, মহানগর আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহসভাপতি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান চন্দন শীল, সাধারণ সম্পাদক খোকন সাহাসহ জাতীয় পাটির নেতৃবৃন্দ প্রমুখ।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

বিভাগীয় সংবাদ এক ক্লিকেই