শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪, ০৬:৫০ পূর্বাহ্ন
বিশেষ ঘোষণা :
সময়ের সাথে সাথে প্রযুক্তিও পাল্টে যাচ্ছে ! তাই বদলাতে হচ্ছে আমাদেরও। আপনি এখন দেখতে পাচ্ছেন সিটি নিউজ পোর্টালের আপডেট ভার্সন। নতুন সাইটে আপনি আরো দ্রুততার সাথে ঝপটপ খবর পড়ে নিতে পারবেন। ২০১৬ সাল থেকে এ পর্যন্ত আমরা ছয় বার সাইট আপডেট করেছি। অনিচ্ছাকৃত ত্রুটির ক্ষমা প্রার্থণা: ওয়েব সাইটটি আপডেট করার সময় পুরনো সাইটের কমবেশি ১০ শতাংশ খবর ”ডাটালস” এর কারণে কোনও পুরনো লিঙ্ক নাও খুলতে পারে। এটা একান্তই টেকনিক্যাল গ্রাউন্ড। যে কারণে সিটি নিউজের সম্পাদকীয় বিভাগ আন্তরিকভাবে ক্ষমা প্রার্থী। সঙ্গে থাকুন।

না.গঞ্জে আইবিএফসি’র আলোচনা সভা ও র‌্যালি অনুষ্ঠিত

রিপোটারের নাম / ৮৯ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : শনিবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০২৩

নিজস্ব প্রতিনিধি: ১৯৭১ সালের ৬ই ডিসেম্বর মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় বাংলাদেশকে ভারত স্বাধীন সার্বোভৌম রাষ্ট্র হিসেবে ঘোষণা দিয়েছিলো। সেই উপলক্ষে নারায়ণগঞ্জে আলোচনা সভা ও র‌্যালি অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার (০৬ ডিসেম্বর) বিকালে শহরের আলী আহাম্মদ চুনকা সিটি পাঠাগারে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। ইন্ডিয়া-বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশীপ সেন্টার (আইবিএফসি) জেলা শাখার উদ্যোগে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে, আইবিএফসি’র উপদেষ্টা মেজর জেনারেল (অব) আবদুর রশিদ ও প্রধান আলোচন হিসেবে আইবিএফসি’র সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট আশালতা বৈদ্য উপস্থিত ছিলেন। এর আগে অনুষ্ঠানটির উদ্বোধন করেন আইবিএফসি’র প্রেসিডেন্ট অ্যাডভোকেট শুভাশীষ সমদ্দার।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি মেজর জেনারেল (অব) আবদুর রশিদ বলেন, ভারত বাংলাদেশের যে জায়গাটা, সে জায়গাটার ভিত্তি খুব শক্ত। কেন শক্ত? মহান মুক্তিযুদ্ধের মধ্যদিয়ে এ দু’দেশের সর্ম্পক যখন তৈরি হয়েছে। সেই যুদ্ধে বাংলাদেশের যেমন ত্রিশ লক্ষ লোক শহীদ হয়েছে, তেমনি ভারতেরও সেনাবাহিনী থেকে শুরু করে ভারতের বহু সাংবাদিকও সেই মুক্তিযুদ্ধে শহীদ হয়েছে। সব মিলিয়ে দু’দেশের মানুষের রক্ত একসাথে প্রবাহিত হয়েছে আমাদের পতাকা, আমাদের মর্যাদার জন্য। আমাদের দেশের স্বাধীনতায় দুই দেশের মানুষের রক্ত মিশে আছে। তাই এ দু’দেশের বন্ধুত্বের যে ভিত্তিটা, সেটা খুব মজবুত।
প্রধান আলোচক আইবিএফসি’র সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট আশালতা বৈদ্য তার বক্তব্যে বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধে ভারত আমাদের তথা বাংলাদেশের জন্য কি না করেছে? ভারত এমনই একটি দেশ, শুধু অস্ত্র দিয়েই আমাদের সহায়তা করেনি, আমাদের প্রশিক্ষিত করেছে। ১২-১৫ বছর ছেলে মেয়েদের প্রশিক্ষণ দিয়ে আবার এদেশে মুক্তিযুদ্ধের জন্য পাঠিয়েছে। আমরা ন’মাস যুদ্ধ করেছি। যুদ্ধের ফলাফল কি? ভারতের ইন্দ্রিয়া গান্ধি সারা বিশ্ব ঘুরে ঘুরে আমাদের যাতে সমর্থন দেয়, সেই সমর্থন আদায় করেছে এবং এককোটি মানুষকে তারা ন’মাস খাদ্য, চিকিৎসা ও আশ্রয় দিয়েছে। তাদের ঋণ শোধ হওয়ার নয়। তাদের সাথে যাতে আমাদের সেই বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক অটল থাকে সেই জন্যই এ সংগঠন গঠন করা হয়েছে।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, আইবিএফসি’র ভাইস প্রেসিডেন্ট মিনহাজুল ইসলাম মিনহাজ, ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক কুমার কল্যাণ, ঢাকা উত্তরের সভাপতি আনিস মাহামুদ, তথ্য ও প্রযুক্তি সম্পাদক জীবন কুমার, ঢাকা মহানগরের সমন্বয়ক ইকবাল বাহার, ঢাকা উত্তরের সাধারন সম্পাদক আলী আবরার, তথ্য ও গবেষনা সম্পাদক মো: রাজ্জাক, ঢাকা মহানগরের সহ সমন্বয়ক নুরে আলম ওসমানী, সহ প্রচার সম্পাদক টিআইএস বিউটি ও নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদের সাবেক সদস্য মোস্তাফিজুর রহমান মাসুম।
আইবিএফসি’র নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি মো: পারভেজ বেপারীর সভাপতিত্বে ও কাজী ওয়াশিমের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন, অনুষ্ঠানের সমন্বয়ক আইবিএফসি’র জেলার শাখার সিনিয়র সহ সভাপতি আবু বকর সিদ্দিকী (বাবু), সাধারণ সম্পাদক শিমুল আহম্মেদ ও সাংগঠনিক সম্পাদক ইকবাল শেখসহ আরও অনেকে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

বিভাগীয় সংবাদ এক ক্লিকেই