শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ১১:৪২ পূর্বাহ্ন
বিশেষ ঘোষণা :
সময়ের সাথে সাথে প্রযুক্তিও পাল্টে যাচ্ছে ! তাই বদলাতে হচ্ছে আমাদেরও। আপনি এখন দেখতে পাচ্ছেন সিটি নিউজ পোর্টালের আপডেট ভার্সন। নতুন সাইটে আপনি আরো দ্রুততার সাথে ঝপটপ খবর পড়ে নিতে পারবেন। ২০১৬ সাল থেকে এ পর্যন্ত আমরা ছয় বার সাইট আপডেট করেছি। অনিচ্ছাকৃত ত্রুটির ক্ষমা প্রার্থণা: ওয়েব সাইটটি আপডেট করার সময় পুরনো সাইটের কমবেশি ১০ শতাংশ খবর ”ডাটালস” এর কারণে কোনও পুরনো লিঙ্ক নাও খুলতে পারে। এটা একান্তই টেকনিক্যাল গ্রাউন্ড। যে কারণে সিটি নিউজের সম্পাদকীয় বিভাগ আন্তরিকভাবে ক্ষমা প্রার্থী। সঙ্গে থাকুন।

এবার মাদক নিয়ন্ত্রণ করতে পারলেই নারায়ণগঞ্জ হবে শান্তির শহর

এস এম ইকবাল রুমী / ৫৫ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : শনিবার, ১৬ মার্চ, ২০২৪

হকার অটো রিকশা আর মাদক শহরবাসীর জন্য বিষফোঁড়ার মতো ছিলো। দেরিতে হলেও প্রশাসন আর জনপ্রতিনিধিদের কঠোর মনোভাবের জন্য হকার ও অটো রিকশা সমস্যার সমাধান হয়েছে। প্রমাণ হলো, প্রশাসন আর জনপ্রতিনিধিরা যে কোন ব্যাপারে ঐক্যমতে পৌছলে তড়িৎ তার সমাধান হয়। কারণে, অকারণে দেশবাসীর কাছে নারায়ণগঞ্জ নানাভাবে আলোচিত, সমালোচিত। নারায়ণগঞ্জকে নানা ঘটনা রটনার শহর বলেই মনে করা হয়। বিশেষ করে বিগত দিনে জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসনের সমন্বয়ের কারণেই নানা প্রতিবন্ধকতার ছিলো। যেমন সিটি কর্পোরেশনের মেয়রের সাথে সংসদ সদস্য একেএম শামীম ওসমানের প্রকাশ্যে বিরোধ ছিলো। সংসদ সদস্য শামীম ওসমান সভা সমাবেশে বরাবরই বলতেন, নারায়ণগঞ্জকে তিনি শান্তির নগরী হিসেবে দেখতে চান ও গড়তে চান। অশান্ত নারায়ণগঞ্জ সব সময় শান্ত থাকুক, এমনটাই আশা করেন নগরবাসী। মেয়র বনাম সাংসদের সাথে হকারদের নিয়ে বিগত দিনে যে সমস্যা তৈরি হয়েছিলো সাংবাদিকদের আহ্বানে গোলটেবিল বৈঠকের মধ্যদিয়ে রাতারাতি তার সমাধান হলো। অটো রিকশা নিয়ে শহরে যে যানজটের সৃষ্টি হতো, প্রশাসন কঠোর হওয়ায় নারায়ণগঞ্জ শহর বর্তমানে যানজট মুক্ত।
রমজান মাসে সকলস্তরের মানুষ যাতে করে শান্তিতে চলাফেরা, কেনাকাটা করতে পারে, তার জন্য প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিদের চলমান ব্যবস্থাকে নারায়ণগঞ্জবাসী যেমন অভিনন্দন জানিয়েছেন, তেমনি যুবসমাজকে রক্ষার জন্য মরন নেশা অবৈধ মাদক বন্ধ করার জন্য প্রশাসন ও জনপ্রনিধিদের প্রতি দাবি জানিয়েছেন।
শহর শহরতলীর সিংহভাগ পাড়া মহল্লায় হাত বাড়ালেই ফেনসিডিল, ইয়াবা ট্যাবলেট ও গাঁজা পাওয়া যায়। শহরের মাসদাইর রোকেয়া খন্দকার পৌর উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে, দেওভোগ বাঁশমুলি, চাঁনমারী মাউরা পট্টি, ইসদাইর বাজার, নিতাইগঞ্জের বাপ্পীচত্বও ও টানবাজারসহ বিভিন্নস্থানে চলে মাদক বিক্রি। বলতে গেলে প্রকাশ্যেই মাদক ব্যবসা করলেও প্রশাসনের সক্রিয় খবরদারী না থাকায় বুক ফুলিয়েই মাদক কারবারিরা মাদক বিক্রি করছে। মাদক ব্যবসায়ীরা প্রকাশ্যেই বলে বেড়ায়, সবাইকে ম্যানেজ করেই তারা তাদের ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। তাই হকার ও অটো রিকশা সমাধানের মত অবৈধ মাদক বন্ধ করতে পারলেই নারায়ণগঞ্জ হবে আরও শান্তির শহর, এমনটাই ধারণা সচেতন নগরবাসীর।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

বিভাগীয় সংবাদ এক ক্লিকেই